মাধবদীতে জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি হয়ে দাড়িয়েছে ব্রহ্মপূত্র নদ, দ্রুত পূরনো অবস্থায় ফিরে আসুক- এমদাদুল ইসলাম খোকন

নরসিংদী সদর উপজেলার মাধবদীর পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া এক সময়ের উত্তাল ব্রহ্মপূত্র নদ মরে গেছে বহু দিন। ময়লা আবর্জনা পড়ে এটি এখন নর্দমার ড্রেন হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। এর উৎকট দূর্গন্ধে মারাত্নক পরিবেশ দূষন ঘটছে। দূষিত পানি,বাজারের বর্জ্য, মিল কল কারখানার নিঃসৃত রাসায়নিক বর্জ্য মাধবদী বাসীর জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি হয়ে দাড়িয়েছে। এক সময় এই ব্রহ্মপূত্র নদ কে কেন্দ্র করে মাধবদীর সভ্যতা গড়ে উঠে। এই নদের মাধবদী থেকে নারায়নগঞ্জ সোনার গাঁ হয়ে মেঘনা নদী দিয়ে ধান পাট সহ নিত্য প্রয়োজনীয় পন্য পরিবহন হতো । বেশী দূরে নয় এখন থেকে দেড় যুগ আগেও মাধবদী বাজারের দক্ষিন ব্রীজের কাছ থেকে বড় বড় নৌকা (স্থানীয় নাম যাকে গয়নার নৌকা) দিয়ে মাধবদী থেকে ধান ,পাট সহ নানা পন্য চলে যেত দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে। আর নারায়নগঞ্জ থেকে সুতা , রং, কেমিক্যাল ও তৎকালিন হ্যান্ডলোমের কাঁচমাল ও যন্ত্রাংশ মাধবদীতে আমদানী হতো ব্রহ্মপূত্র নদের মাধ্যমে জল পথে। বর্তমানে এটি এখানকার মিল ফ্যক্টরীর বর্জ্য ও পৌর শহরের আর্বজনা পড়ে নাব্যতা হারিয়ে মরা গাং হিসেবে খ্যাতি অর্জন করে মারাত্নক পরিবেশ দূষনের কারন হয়ে দাড়িয়েছে। বিশাল এই শিল্পাঞ্চল মাধবদীর কোথাও অগ্নিকান্ড ঘটলে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ীর ট্যাংকে থাকা পানি ফুরিয়ে গেলে ব্রহ্মপূত্রে পানি না থাকায় এবং আশ পাশে খাল বিল পুকুর জলাশয় নেই বলে অনেক সময় অপুরনীয় ক্ষতি হলেও ফায়ার সার্ভিসের করনীয় কিছুই থাকে না। এ ব্যাপারে গনমাধ্যমে লেখালেখি হলে ইতিপুর্বে কয়েক বার সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় ব্রহ্মপূত্রের তীর সংরক্ষন ও নাব্যতা সৃষ্টির লক্ষ্যে খনন করার জন্য টেন্ডার আহবান করেন। কিন্তু রহস্যজনক কারনে ঐ টেন্ডার আবার চাপা পড়ে যায়। এর কারন খোঁজ করলে দেখা যাবে ব্রহ্মপূত্রের দু’তীরে গড়ে উঠেছে বহু অবৈধ স্থাপনা এমনকি বহুতল ভবনও এ প্রভাবশালীদের উচ্ছেদ করতে সরকার পদক্ষেপ নিলেই প্রভাবশালীদের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয় আর তখনই চাপা পড়ে যায় সেই টেন্ডারের ফাইল। মাধবদী বাসীকে মারাতœক এ পরিবেশ দূষণের হাত থেকে রক্ষার জন্য ব্রহ্মপূত্রের তীর সংরক্ষন ও নদী খননের উদ্যোগ গ্রহন করে গড়ে উঠা অবৈধ দখলদারদের বহুতল স্থাপনা অপসারণ করলে এক দিকে সরকারী রাজস্ব আয়ের পথ তৈরি হবে অন্য দিকে এটি খনন করে নাব্যতা সৃষ্টি করলে এলাকাবাসি উপকৃত হবে এবং রোগ ব্যাধি ছড়ানো পরিবেশ দূষণের হাত থেকে বেচেঁ যাবে। সম্প্রতি পানি সম্পদ প্রতি মন্ত্রী ও নরসিংদী সদর সাংসদ মোঃ নজরুল ইসলাম হীরু বীর প্রতীক ব্রহ্মপূত্র খননের ব্যাপারে জোরালো তদবীর চালাচ্ছেন বলে জানা গেছে।এদিকে মাধবদী পৌর সভার পক্ষ থেকে ও নদী খননের এবং পুরানো ব্রিজ ভেঙ্গে দীর্ঘ ব্রিজ নির্মানের ব্যাপারে পদক্ষেপ নিচ্ছেন। পৌরসভার উত্তরের ব্রীজ থেকে বাজারের মাঝের ব্রীজ পর্যন্ত অবৈধ উচ্ছেদ শুরু হয়েছে। এব্যাপারে পৌর কর্তৃপক্ষের আপোষহীন ভুমিকার প্রশংসা করছেন সবাই। কারো পদ-পদবীর দিকে না তাকিয়ে নদীকে দখলমুক্ত করা, দূষণ মুক্ত করাই পৌর মেয়রের ব্রত হয়ে দাড়িয়েছে। কিন্তু দখলদারদের কেউ কেউ এ ব্যাপারে আপত্তি জানাচ্ছে-এটা যে বিত্তশালীদের হীনমন্যতা তা আর বুঝতে বাকি নেই। তবে মাধবদী বাসী এই ব্রম্মপুত্র নদকে পূরনো অবস্থায় ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে ঐক্যবদ্ধ। আমরা আশা করি এব্যাপারে যেন আর কোন দীর্ঘ্য সূত্রিতা নয়। কোন রক্তচক্ষুর ভয়ে ভীত না হন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

লাইক দিয়ে শেয়ার করুন
0
madhabdi

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *